সর্বশেষ সংবাদ
Home » হাট বাজার » মোটরসাইকেলের মার্কেটিং স্ট্রাটেজি বদলে যাচ্ছে

মোটরসাইকেলের মার্কেটিং স্ট্রাটেজি বদলে যাচ্ছে

মোটরসাইকেলের মার্কেটিং স্ট্রাটেজি বদলে যাচ্ছে

২০১৭ সালটি বাংলাদেশের মোটরসাইকেল মার্কেটে একটি বিশাল পরিবর্তন এসেছে। প্রায় ৪ লাখ মোটরসাইকেল বিক্রি হয়েছে ২০১৭ সালে। এর বড় কারণ হচ্ছে বড় বড় মোটরসাইকেল কোম্পানি গুলো এক সাথে হয়েছে। সবচেয়ে বড় যেই পরিবর্তনটি এসেছে ২০১৭ সালে তা হলো আফটার সেল সার্ভিস। এই ক্ষেত্রে ইয়ামাহা অন্যতম রোল মডেল। বর্তমানে সারাদেশে ৩৮টিরও বেশি থ্রিএস ( সেলস, সার্ভিস এবং স্পেয়ার পার্টস) সেন্টার অত্যন্ত সফলতার সাথে পরিচালিত করছে ইয়ামাহা।

আগে কোম্পানিগুলো তাদের ডিলারশিপে মোটরসাইকেল বিক্রি করতো।কিন্তু এতে বাইকাররা কোন সমস্যায় পড়লে তাদের সেন্ট্রাল সার্ভিস সেন্টারে যেতে হতো বা লোকাল ও দক্ষ প্রশিক্ষিত মেকানিকের মাধ্যমে সেবা নিতে হতো। যার জন্য সাধারণত জেলা শহরগুলোতে যেতে হতো। তবে ইয়ামাহা এবং হোন্ডা তাদের নিজস্ব কনসেপ্ট নিয়ে হাজির হয়েছে। ইয়ামাহা  শুরু করেছে থ্রিএস সেন্টার কনসেপ্ট। এটা শুধু তাদের ব্র্যান্ড ভ্যালুই বাড়াবে না; এতে ব্র্যান্ড ইমেজও বাড়ছে। ইয়ামাহা থ্রিএস ডিলারশিপের পাশাপাশি আধুনিক যন্ত্রপাতি ও কম্পিউটারাইজড পদ্ধতিতে মোটরসাইকেল সার্ভিসিং এর নতুন দিগন্তের সূচনা করেছে ।

বর্তমানে মোটরসাইকেলের মার্কেটিং স্ট্রাটেজির ক্ষেত্রে যেসব বিষয়গুলোকে বিবেচোনা করা হয় তা নিয়ে আমরা এখন কিছু ধারনা দিব । উদাহরণস্বরূপ ইয়ামাহার অন্যতম সেরা এবং বড় ডিলার ক্রিসেন্ট এন্টারপ্রাইজের কথাই ধরা যাক। যেটি বর্তমানে মিরপুরের ৬০ ফিট এলাকায় অবস্থিত। ৩৭০০ বর্গফুটের এই শো-রুমে আসলে বাইকাররা একটি আদর্শ থ্রিএস  সেন্টারের পরিপূর্ণ ধারণা নিতে পারবে ।

সেলস:
মোটরসাইকেল ব্যবসার  সবচেয়ে বড় অংশ হচ্ছে সেলস। কোম্পানিকে জানতে হবে যে মার্কেটে যে সঠিক প্রোডাক্ট দিতে হবে এবং একই সময়ে খেয়াল রাখতে হবে যে কাস্টোমার যাতে করে উন্নত প্রোডাক্ট পায়। তাই সেলস বাড়ানো লক্ষ্যে ইয়ামাহা থ্রিএস সেন্টার ওপেন করেছে।

ডিসপ্লে এরিয়া: এই এরিয়াতে মোটরসাইকেল ডিসপ্লে করা হয়। ইয়ামাহা এই ডিসপ্লে এরিয়াতে তাদের মোটরসাইকেলের বিভিন্ন মডেল ও কালারসহ প্রদর্শন করে। এই এরিয়াতে বাইকারা বাইক গুলোর ৩৬০ ডিগ্রী ভিউ পাবে। যাতে করে বাইকারা বাইকটির প্রত্যেক পার্ট পর্যবেক্ষন করতে পারে।

ডিসকাশন রুম: প্রত্যেক ইয়ামাহা থ্রিএস সেন্টারে একটি ডিসকাশন রুম রয়েছে। এখানে বাইকারা তাদের পছন্দের বাইকের বিষয়ে শো- রুমের বিক্রয় প্রতিনিধির সাথে আলোচনা করতে পারে। বিক্রয় প্রতিনিধি বাইকারের চাহিদা অনুযায়ী সঠিক মোটরসাইকেলটি কেনার ব্যাপারে সহায়তা করেন ।

রিসেপশন: এখানে বাইকারা তাদের সেলস ফর্মালিটিস ও প্রয়োজনীয় সকল কাগজ সংগ্রহ করতে পারবেন। বেশির ভাগ ইয়ামাহা থ্রিএস সেন্টারে রিসিপশনিস্ট মেয়ে, যারা কাস্টোমার সার্ভিসের ব্যাপারটি দাখাশোনা করেন।

স্টক জোন: এখানে বাইক স্টক করা থাকে। বাইকারা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী মডেল পছন্দ করতে পারবেন। যদি কোন ধরনের মডেলে পছন্দের সমস্যা হয় তবে কালার কম্বিনেশন পছন্দ করতে পারবেন।

সার্ভিস:
বর্তমানে বাংলাদেশের বেশির ভাগ ইয়ামাহা মোটরসাইকেল ফুয়েল ইঞ্জেক্ট। তাই এসিআই মোটরস দক্ষ ও প্রশিক্ষিত মেকানিক নিয়োগ করেছে এফআই সার্ভিস দেয়ার জন্য এবং এফআই এর জন্য আলাদা টুলস ব্যবহার করা হয়।

ডায়গনস্টিক টুলস: এই টুলস এর মাধ্যমে ফুয়েল ইঞ্জেক্ট সিস্টেমের সমস্যা খুব সহজেই সমাধান করা সম্ভব। এছাড়া এটি খুব অল্প সময় নিয়ে থাকে সমস্যা সমাধানের জন্য। এই পর্যন্ত অন্য কোন কোম্পানির থ্রিএস সেন্টারে এই ধরনের টুলস নেই।

ওআইডিটি: এই টুলস দিয়ে বাইকের যেকোন সমস্যা সহজেই খুজে পাওয়া সম্ভব। যদি কোন সমস্যা ধরা পরে তবে যাতে করে খুব সহজেই সমস্যার সমাধান করা যায়।

ফুয়েল ইঞ্জেক্ট ক্লিনার: এই ক্লিনার হেল্প করবে ফুয়েল ইঞ্জেক্ট ক্লিন করার জন্য। এই সময়ে যেই সব বাইক যেমন R15, FZS এবং Fazer বাংলাদেশে আসছে সেগুলো ফুয়েল ইঞ্জেক্ট। আর খারাপ জ্বালানির জন্য প্রতি সময়ে ক্লিন করতে হয়।

ওয়েটিং রুম: যখন বাইকারা বাইক সার্ভিসং করবেন তখন শিতাতপনিয়ন্ত্রিত কক্ষে বসে অপেক্ষা করতে পারবেন। যা গ্লাস দ্বারা ঘেরা। এছাড়া সময় কাটানোর জন্য এখানে আছে ফ্রি ওয়াই-ফাই , ম্যাগাজিন ও নিউজপেপার পড়ার বাবস্থা।

স্পেয়ার্স:
সবশেষে আসে থ্রিএস এর শেষ পার্ট স্পেয়ার্স পার্টস। এখানে আপনি সকল স্পেয়ার্স পার্টস পাবেন। যা এসিআই মোটরস ডিসট্রিবিউটর হিসেবে যেসব মোটরসাইকেল বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে তার সকল পার্টস পাবেন। আপনি নিশ্চত ভাবে সব অরিজিনাল পার্টস পাবেন এবং পার্টসের দাম অলমোস্ট ফিক্সড।

ইয়ামাহা থ্রিএস সেন্টারে কাস্টোমার বাইক কিনতে পারবে যারা অথোরাইজড ডিলার রয়েছে তাদের কাছ থেকে। আবার একই সাথে সার্ভিস (ফ্রি সার্ভিস ও পেইড সার্ভিস) দুটো এক জায়গা পাবেন। এছাড়াও স্পেয়ার্স পার্টেসের ফিডব্যাক ও পাবেন সেখান থেকে।

মন্তব্য

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*