সর্বশেষ সংবাদ
Home » স্বাস্থ্য » গর্ভাবস্থায় কিডনির রোগ থেকে সাবধান

গর্ভাবস্থায় কিডনির রোগ থেকে সাবধান

গর্ভাবস্থায় কিডনির রোগ থেকে সাবধান

ক্রনিক কিডনি ডিজ়িজ় (CKD) বিশ্বের ১০ শতাংশ মানুষের শরীরেই দেখা যায়। পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের শরীরেই বেশি বাসা বাঁধে এই রোগ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতি বছর বিশ্বে ১৯৫ মিলিয়ন মহিলা CKD-তে আক্রান্ত হন। 

গর্ভে সন্তান থাকাকালীন যদি কোনও মহিলার শরীরে এই রোগ দেখা দেয়, তাহলে গর্ভধারণের ক্ষেত্রে তা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। মা এবং ভ্রুণ দু’জনের ক্ষেত্রেই তা বিপজ্জনক হতে পারে। এক্ষেত্রে সাধারণত সময়ের আগেই সন্তান প্রসব, বা শিশুর স্বাভাবিক বৃদ্ধি না হওয়া কিংবা মৃত সন্তানের জন্ম দেওয়ার মতো পরিণতিও হতে পারে। 

সেক্ষেত্রে কী করবেন?

এক্ষেত্রে যেটা সবার আগে দরকার তা হল সচেতনতা। সময়মতো রোগ নির্ণয় করতে পারলে এবং সঠিক চিকিৎসা করাতে পারলে ঝুঁকি অনেকাংশেই কমে যায়। 

CKD একেবারে প্রথম পর্যায়ে থাকলে (যাকে বলে মাইল্ড CKD) যদি ব্লাড প্রেশার ঠিক থাকে বা মূত্রে প্রোটিনের মাত্রা কম থাকে, তাহলে সেইসব মহিলারা সুস্থ সন্তানের জন্ম দিতে পারেন। যদি গর্ভধারণের পর CKD ধরা পড়ে এবং তা ৪-৫ স্টেজে চলে যায়, তাহলে গর্ভপাত করানোই ভালো। 

যদি কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়, তাহলে তারপর কমপক্ষে ১ বছর গর্ভধারণের কথা ভাববেন না। যদিও এখন চিকিৎসাশাস্ত্র অনেক উন্নত। ওষুধ তো রয়েছেই, সেইসঙ্গে অ্যাসিস্টেড রিপ্রোডাক্টিভ টেকনিক এবং হরমোন থেরাপির মতো নানানধরনের চিকিৎসাও রয়েছে। তাই CKD হলেও সুস্থ সন্তানের জন্ম দেওয়া সম্ভব।

মন্তব্য

মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা

এই করোনাভাইরাসটি ভয়াবহ গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। এটি প্রতিরোধ করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি। শিশুদের উপর এই ভাইরাসের প্রভাব বা এতে কতজন আক্রান্ত হতে পারে- সে সম্পর্কে আমরা এখনও বেশি কিছু জানি না। কিন্তু নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও প্রতিরোধ এক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয়। সময় আমাদের সাথে নেই।”