Logo
সংবাদ শিরোনাম :
ফাপোর আন্তঃ ইউনিয়ন ফুটবল টুর্নামেন্টে অনুষ্টিত। টুঙ্গিপাড়া গ্রাম থেকে বিশ্বমানবতার নেত্রী ছাত্রদলে মিছিলে ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে বগুড়া জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল নওগাঁয় ভুট্টাক্ষেত থেকে শিশুর হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার গাজীপুরে গোডাউনে মিলল টিসিবি পণ্য চীনে ১৩৩ যাত্রী নিয়ে বিমান বিধ্বস্ত বগুড়ায় পিকনিকে হামলা করে যুবককে কুপিয়ে হত্যা একশত টাকা মূল্যমানের প্রাইজ বন্ডের ১০৬তম ‘ড্র’ অনুষ্ঠিত !! বগুড়া শহরে প্রথম চার তারকা হোটেল নাজ গার্ডেন বিক্রি বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের নেত্রী মাহবুবা নাসরিন রুপাকে জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার




ঢাকায় করোনা শনাক্ত হয়ে গোপনে বাড়িতে (চুয়াডাঙ্গা) আসায় আবার ঢাকায় ফেরত।

দামুড়হুদা উপজেলা প্রতিনিধি
আপডেট করা হয়েছে : মঙ্গলবার, ২১ এপ্রিল, ২০২০

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর গ্রামে শহিদ উদ্দীন (৬৫) নামের এক ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ঢাকায় করোনা শনাক্ত হয়ে পালিয়ে আসে নিজ বাড়িতে।চুয়াডাঙ্গা জেলার সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান জানান, বেগমপুর ইউনিয়নের শহীদ উদ্দীন অনেক দিন যাবৎ কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। শরীরের অবস্থা বেশি খারাপ হলে ১৩ ই এপ্রিল ঢাকা শের-ই বাংলা নগর কিডনি হাসপাতালে ভর্তি করে।
সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক রোগীর অবস্থা দেখে নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর এ পাঠায়। পরীক্ষায় রেজাল্ট করোনা পজিটিভ আসে বলে জানায় আইইডিসিআর। এরপর কিডনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে কুয়েত মৈত্রি হাসপাতালে রেফার্ড করেন। কিন্তু হাসপাতালে না গিয়ে চলে আসেন নিজ বাড়ি চুয়াডাঙ্গার বেগমপুরে।
১৮ তারিখ বাসায় আসলে গতকাল ২০ এপ্রিল বিষটি লোকজন বুঝে ফেলে। এর পর চুয়াডাঙ্গার সাস্থ্য বিভাগ বিষয়টি অবহিত হয়ে ঐ রোগীর বাসায় এসে চিকিৎসার কাগজপত্র দেখে করোনা নিশ্চিৎ হন। এবং সাথে সাথে প্রশাসন ঐ বাড়ি লকডাউন করেন ও লাল ফ্লাগ দিয়ে চিহ্নিত করেন।
দর্শনা থানার ওসি মাহাবুবুর রহমান জানান, এই ঘটনা শুনার পর থেকে ঐ গ্রাম কঠোর ভাবে লকডাউন করা হয়। ২০ তারিখ সিভিল সার্জন টিম এসে কাগজপত্র দেখে বিষয়টি নিশ্চিৎ হন। এর পর রোগীকে একটা রুমে রাখা হয়। রোগীর বাড়ি লাল পতাকা দেওয়া হয়। এবং সকল মানুষের মঙ্গলের জন্য লকডাউন করা হয় যাতে তার পরিবার বাইরে যেতে না পারে। এখন সবাই যার যার ঘরে অবস্থান করছে।
অাজ ২১ তারিখ সিভিলসার্জন টিম বিশেষ ব্যবস্থায় করোনা রোগী শহীদ উদ্দীনকে ঢাকায় পাঠান। সেইসাথে ঐ পরিবারের সকলের নমুনা সংগ্রহ করেছে সাস্থ্য বিভাগ। কিন্তু রোগীর বড় মেয়ে মৃত ইভার দুই সন্তানকে তার বাবার বাড়ী দর্শনা রামনগরে পাঠায়ে দেয়। তার বাবা রামনগর গ্রামের মাঝপাড়ার পলাশ। তিনি একজন কাঁচামাল ব্যাবসায়ী।
কিন্তু সত্য কখনো চাপা থাকেনা। বিষয়টি দর্শনা থানা পুলিশ অবগত হয়ে সন্ধা ৮.৩০ টার দিকে রামনগর পলাশের বাড়িতে লাল পতাকা বেঁধে দেন ও তার বাড়ি লকডাউন ঘোষনা করেন।
এমতাবস্থায় রামনগর এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। রামনগর বাসীর একটিই চাওয়া আল্লাহ তা-য়ালা এ মহামারি দুর্যোগ থেকে সকলকে হেফাজত দান করুন আমিন।

মন্তব্য

মন্তব্য





এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুকে আমরা




Theme Created By ThemesDealer.Com