Logo
সংবাদ শিরোনাম :
শাজাহানপুরে কিস্তির চাপে যুবকের আত্মহত্যা শিবগঞ্জ‌ে সা‌পের কাম‌ড়ে যুব‌কের মৃত্যু বগুড়া সদর উপজেলা পরিষদ অফিস সহায়ক মরহুম মাজ্জুল মন্ডলের পরিবারকে নগদ অর্থ প্রদান… গাইবান্ধা শহরে সাগর ফ্যাশন এর উদ্বোধন দেওয়াল ঘর ধসে সাংবাদিক দুলালের মানবেতর জীবন যাপন, সরকারি সাহায্যের আবেদন বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান রিজু’র সুস্থতায় শুকরিয়া কামনা করে রায়নগর কাজীপুর জামে মসজিদে দোয়া…. মহান নেতা তারেক রহমান এখন শুধু বগুড়ার নয় সারা বাংলাদেশের সম্পদ …মাফতুন আহম্মেদ খান রুবেল সরকারি আজিজুল হক কলেজ ছাত্রদল নেতার সন্ধান সরকারের উদ্যোগে মিলাদ মাহফিল শাজাহানপুরে পোনামাছ অবমুক্তকরণ বাঘা বাঘা ৭ আইনজীবী এনেও মুক্তি মিললো না প্রদীপ, লিয়াকত ও নন্দদুলালের




মাস্ক নিয়ে নতুন নির্দেশনা দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

ডেস্ক নিউজ
আপডেট করা হয়েছে : রবিবার, ৭ জুন, ২০২০
ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং আক্রান্ত রোগীর সেবায় নিয়োজিতদের মাস্ক পরলেই হবে- আগে দেওয়া এমন নির্দেশনা থেকে সরে এসেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

শুক্রবার (৬ জুন) নতুন নির্দেশনায় সংস্থাটি বলেছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এলাকা এবং যেখানে শারীরিক দূরত্ব মানা কঠিন সেসব জায়গায় অবশ্যই মাস্ক পরে চলাচল করা উচিত।

গত ডিসেম্বরের চীনের উহান থেকে করোনাভাইরাসের সূত্রপাতের পর থেকেই এই ভাইরাসের বিস্তার রোধে মাস্কের কার্যকারিতার বিষয়টি অন্যতম আলোচ্য বিষয় হয়ে ওঠে।

এ ব্যাপারে নতুন নির্দেশনায় ডব্লিউএইচও’র প্রধান তেদ্রোস আধানম গাব্রিয়েসাস বলেন, নতুন প্রমাণের আলোকে যেসব জায়গায় এই ভাইরাস ব্যাপক বিস্তার লাভ করেছে এবং শারীরিক দূরত্বের বিষয়টি কঠিন সেসব স্থানে ডব্লিউএইচও সরকারগুলোকে জনসাধারণকে মাস্ক পরায় ব্যাপারে উৎসাহিত করার পরামর্শ দিচ্ছে।

আমাদের পরামর্শ, যেসব জায়গায় শারীরিক দূরত্ব সম্ভব না, যেসব মানুষের বয়স ৬০ বা তার বেশি অথবা যাদের অবস্থা শয্যাশায়ী তাদের মেডিকেল মাস্ক ব্যবহার করা উচিত।- যোগ করেন আধানম।

তবে জাতিসংঘের আওতাভুক্ত স্বাস্থ্য সংস্থাটি এটাও জানিয়েছে যে, কেবল ফেসমাস্ক ‘কভিড-১৯ থেকে কাউকে রক্ষা করতে পারবে না’। সেই সঙ্গে এই রোগে আক্রান্তদের পারলে জনসমাগমে না আসার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসের লক্ষণ আছে এমন ব্যক্তিদের যদি বাইরে আসতেই তাহলে অবশ্যই মেডিকেল মাস্ক পরার জন্য পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

মাস্ক নিয়ে এর আগে ডব্লিউএইচও’র পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে, সুস্থ মানুষের মাস্ক পরার দরকার আছে এমন কোনো প্রমাণ নেই।

তখন নির্দেশনা ছিল, একই রুমে যারা করোনায় আক্রান্ত রোগীর সেবাযত্নে নিয়োজিত তাদেরই মেডিকেল মাস্ক পরলে চলবে। করোনা সন্দেহ রোগী এবং করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার ক্ষেত্রে জড়িত স্বাস্থ্যকর্মীদের মাস্ক ও অন্যান্য সুরক্ষা পোশাক পরতে বলা হয়। অহেতুক সবার মাস্ক পরার দরকার নেই বলেও উল্লেখ করা হয়।

অবশ্য মাস্ক নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এমন পরামর্শ কানে নেয়নি বাংলাদেশসহ অনেক দেশ। বরং জনসমাগমে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে দেশগুলোর সরকার।

মন্তব্য

মন্তব্য





এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুকে আমরা




Theme Created By ThemesDealer.Com